অনলাইন শিক্ষা রচনা – Online Education Essay in Bengali

অনলাইন শিক্ষা রচনা – Online Education Essay in Bengali : যখন বিশ্বের সবচেয়ে বিপজ্জনক ভাইরাস অর্থাৎ করোনা ভাইরাসের কারণে লকডাউন হয়েছিল, তখন থেকে এই শব্দটি অর্থাৎ অনলাইন শিক্ষা খুব আলোচিত। আজকাল সারা বিশ্ব থেকে শিক্ষার্থীরা নিজ নিজ বাড়িতে বসে শিক্ষা গ্রহণ করেছিল এবং আমাদের ভারতে এখন পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের অনলাইন শিক্ষা দেওয়া হয়। যদি অনলাইন শিক্ষা না থাকত, তাহলে হয়তো আমরা আমাদের সন্তানদের শিক্ষা দিতে পারতাম না? এজন্যই আজ অনলাইন শিক্ষা আমাদের জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ।

অনলাইন শিক্ষা রচনা – Online Education Essay in Bengali

টেলিগ্রাম এ জয়েন করুন
অনলাইন শিক্ষা রচনা

অনলাইন শিক্ষা কি?

আপনি যদি সহজ ভাষায় অনলাইন শিক্ষা বুঝেন, তাহলে একজন শিক্ষার্থী যখন তার বাসায় বসে স্মার্টফোন, ট্যাবলেট, কম্পিউটার এবং ল্যাপটপের মতো যেকোনো ইলেকট্রনিক যন্ত্রের মাধ্যমে শিক্ষা লাভ করে, তখন তাকে অনলাইন শিক্ষা বলা হয়। অনেকে অনলাইন শিক্ষাকে আধুনিক শিক্ষাও বলে থাকেন। কারণ এতে শিক্ষার্থীর শিক্ষা লাভের জন্য ঘর থেকে বের হওয়ার প্রয়োজন নেই। সে তার বাসা থেকে ইন্টারনেট এবং স্মার্টফোনের মাধ্যমে শিক্ষা পেতে পারে।

অনলাইন শিক্ষায়, একজন শিক্ষক বিশ্বের যে কোন প্রান্তে তার বাড়িতে বসে তার ছাত্রকে সর্বোত্তম শিক্ষা প্রদান করতে পারেন। এতে, ছাত্রদের কোন ব্ল্যাক বোর্ডের সামনে বসার প্রয়োজন নেই, না কোন ক্লাসে (ক্লাস)। এভাবে, যখন শিক্ষক এবং ছাত্র উভয়েই ঘরে বসে শিক্ষা গ্রহণ করেন, তখন তাকে বলা হয় অনলাইন শিক্ষা।

আমাদের অনলাইন শিক্ষার প্রয়োজন কেন?

প্রসঙ্গত, গত অনেক বছর ধরে শিক্ষার্থীদের অনলাইন শিক্ষা দেওয়া হচ্ছিল। বিশেষ করে যখন জিও আমাদের ভারতে এসেছিল, তখন অনলাইন শিক্ষা কিছুটা গতি পেয়েছিল। এই সময়ে লোকেরা ইউটিউব এবং বিভিন্ন সামাজিক মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম থেকে শিক্ষা গ্রহণ করছিল। কিন্তু সেই সময় অনলাইন শিক্ষা বিশ্বের কয়েকটি দেশ এবং রাজ্যে পৌঁছেছিল। এই সময়ে মানুষের অনলাইন শিক্ষার তেমন প্রয়োজন ছিল না।

কিন্তু করোনা ভাইরাস মহামারী হঠাৎ করে অনলাইন শিক্ষায় বড় পরিবর্তন এনেছে। এই ভাইরাসের কারণে, সমস্ত মানুষকে তাদের ঘরে আটকে রাখা দরকার। এই সময়ে পৃথিবীর সকল মানুষকে শিক্ষা লাভের একটি মাত্র পথ দেখানো হয়েছিল, আর তা ছিল অনলাইন শিক্ষা। একই সময়ে, কেবল ভারতই নয়, সমগ্র বিশ্বের জন্য অনলাইন শিক্ষার প্রয়োজন ছিল এবং এই অনলাইন শিক্ষা থেকে খুব জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। আমাদের স্কুল এবং শিক্ষকরাও অনলাইনে শিক্ষা গ্রহণ এবং শিক্ষার্থীদের কাছে পৌঁছানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

অনলাইন শিক্ষার ধরন

অনলাইন শিক্ষা দুটি প্রধান ভাগে বিভক্ত। সিঙ্ক্রোনাস লার্নিং এবং অসিঙ্ক্রোনাস লার্নিং।

সিঙ্ক্রোনাস শিক্ষায়, শিক্ষার্থীদের একই সময়ে শিক্ষক দ্বারা শেখানো হয়। এজন্য একে লাইভ টেলিকাস্ট লার্নিংও বলা হয়। লাইভ অডিও এবং ভিডিও কনফারেন্সিং সিঙ্ক্রোনাস শিক্ষায় ব্যবহৃত হয়। যেখানে অসিঙ্ক্রোনাস শিক্ষায়, ছাত্র তার ইচ্ছা অনুযায়ী শিক্ষা গ্রহণ করে। কারণ এতে সব ক্লাস রেকর্ড করা আছে। আমাদের দেশের অধিকাংশ মানুষ এই পদ্ধতি ব্যবহার করে পড়াশোনা করে।

অনলাইন শিক্ষা পাওয়ার কিছু উপায়

অনলাইন শিক্ষা তিনটি প্রধান উপায়ে অর্জন করা যায়। যেখানে ইউটিউবের মাধ্যমে প্রথম। আজ ইউটিউবে প্রতিটি বিষয়ের ভিডিও পাওয়া যায়। দেশ ও বিশ্বের যে কোনো শিক্ষার্থী ইউটিউবে ভিডিও দেখে বিনামূল্যে শিক্ষা পেতে পারে।

অনলাইন শিক্ষার আরেকটি উপায় হল গুগলের মাধ্যমে। গুগলের অনলাইনে লেখা জিনিস পড়ে আমরা খুব ভালো শিক্ষাও পেতে পারি। এর বাইরে, যদি আমরা কোন বিষয়ে জানতে চাই, তাহলে আমরা গুগলে সার্চ করে বিনামূল্যে জ্ঞান পেতে পারি।

এবং অনলাইন শিক্ষা পাওয়ার তৃতীয় প্রধান উপায় হল লাইভ ক্লাস করা। বর্তমানে একজন শিক্ষার্থী যেকোনো অনলাইন কোর্স কিনে ঘরে বসে খুব ভালোভাবে পড়াশোনা করতে পারে। যার মধ্যে রয়েছে বাইজাস, ওয়াইফাই স্টুডি, ইউনাক্যাডেমি, বেদান্তু, এক্সট্রামার্কস এবং টেস্টবুকের মতো বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মের নাম। এই প্ল্যাটফর্মগুলির কোর্সগুলি কেনার মাধ্যমে, শিক্ষার্থী যে কোনও জায়গায় অধ্যয়ন করতে পারে এবং শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে।

অনলাইন শিক্ষার সুবিধা এবং অসুবিধা

আজকের যুগে অনলাইন শিক্ষার অনেক সুবিধা এবং সুবিধা রয়েছে। কিন্তু পৃথিবীর সব কিছুরই দুটি দিক আছে, একটি হলো লাভ এবং অন্যটি হল ক্ষতি। তাই অনলাইন শিক্ষারও কিছু অসুবিধা রয়েছে। আমরা এর সুবিধা এবং অসুবিধা উভয়ই ঘুরে আসব।

অনলাইন শিক্ষার সুবিধা

শিক্ষা পৃথিবীর প্রতিটি মানুষের মৌলিক অধিকার। বিশ্বের প্রতিটি দেশ তার নাগরিকদের একটি ভাল শিক্ষা প্রদানের চেষ্টা করে। কারণ শিক্ষার মাধ্যমে একজন ব্যক্তি তার মানসিক, মেধা ও আর্থিক স্তরের উন্নতি করতে পারে। কিন্তু যখন করোনা ভাইরাসের কারণে লকডাউন হয়েছিল, তখন অনলাইনে মানুষের কাছে শিক্ষা সহজলভ্য করার প্রয়োজন ছিল। এবং সম্পূর্ণ লকডাউন লোকেরা ঘরে বসে অনলাইন শিক্ষা গ্রহণ করেছিল। কিন্তু আমরা কি অনলাইন শিক্ষা থেকে উপকৃত হয়েছিলাম?

তাই উত্তর হবে হ্যাঁ। অনলাইন শিক্ষার প্রথম সুবিধা ছিল এটি ছাত্র এবং শিক্ষকদের অনেক সময় এবং অর্থ সাশ্রয় করেছিল। কারণ এই শিক্ষা ঘরে বসে নেওয়া হয়েছিল, যার কারণে শিক্ষার্থীদের এবং শিক্ষকদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাওয়ার প্রয়োজন ছিল না। যার কারণে তিনি অনেক সময় বাঁচিয়েছেন। সময়ের সাথে সাথে অনলাইন শিক্ষার মাধ্যমেও অর্থ সাশ্রয় হয়েছে। কারণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাওয়া এবং খাওয়া দাওয়ার অনেক খরচ বাঁচানো হয়েছিল।

এর বাইরে, শিক্ষার্থীদের দেওয়া অনলাইন ক্লাস রেকর্ড রয়েছে। যার কারণে যদি কখনও কোন ছাত্র ক্লাস মিস করে, তাহলে সেই রেকর্ড দেখার পরেও আমরা শিক্ষা পেতে পারি। সেই সাথে, যদি কোন শিক্ষার্থী অনলাইন ক্লাস চলাকালীন একটি বিষয় বুঝতে না পারে, তাহলে সে আবার রেকর্ডিং ক্লাস শুনে তার সন্দেহ এবং দ্বিধা দূর করতে পারে।

একজন শিক্ষক তার শিক্ষার্থীকে বিশ্বের যে কোন প্রান্তে বসে অনলাইনে শিক্ষার মাধ্যমে তার বাসায় বসে সেরা শিক্ষা দিতে পারেন। এবং শিক্ষার্থী বিশ্বের যে কোন প্রান্তে বসে তার প্রিয় শিক্ষকের কাছ থেকেও শিক্ষা লাভ করতে পারে।

এবং আমরা এটাও জানতাম যে ভারতে এরকম অনেক প্ল্যাটফর্ম আছে, যা ছাত্রদের সর্বোত্তম শিক্ষা প্রদানের চেষ্টা করে। যার মধ্যে রয়েছে বাইজু, বেদান্তু এবং খান একাডেমির মতো অনেক নাম। এই লোকেরা তাদের নিজস্ব অ্যাপ তৈরি করেছে, যার মাধ্যমে তারা শিক্ষার্থীদের কাছে সর্বোত্তম শিক্ষা পৌঁছানোর চেষ্টা করে। এই লোকেরা এই অ্যাপ্লিকেশনগুলিতে যোগদানকারী প্রতিটি শিক্ষার্থীর সাথে ব্যক্তিগত যোগাযোগ করে। যার কারণে যদি তাদের কোন সমস্যা হয়, তাহলে তাদের শিক্ষকরা তাদের সমস্যা অবিলম্বে সমাধান করেন।

অনলাইন শিক্ষা দেশের নারীদের জন্য একটি নিরাপদ পরিবেশও প্রদান করে। কারণ এখানে ঘর থেকে বের হওয়ার দরকার নেই। মহিলারা ঘরে বসে কিছু শিখতে পারে এবং অন্যদেরও শিখাতে পারে। যেমন রান্না, সেলাই, কারুকাজ, অঙ্কন, চিত্রকলা ইত্যাদি।

আপনি যদি সহজ ভাষায় বুঝেন, আপনার যদি ইন্টারনেট এবং স্মার্টফোন থাকে, তাহলে আপনি অনলাইনে কিছু শিখতে পারেন।

অনলাইন শিক্ষার অসুবিধা

অনলাইন শিক্ষার প্রথম অসুবিধা হলো শিক্ষার্থীকে অনেক ঘন্টা মোবাইল বা ল্যাপটপের সামনে বসে থাকতে হয়। যার কারণে তাদের চোখ এবং স্বাস্থ্যের উপর খুব খারাপ প্রভাব পড়ে।

অনলাইন শিক্ষার একটি অসুবিধা হলো তারা শিক্ষার পরিবেশ পায় না। যার কারণে সে ধীরে ধীরে লেখাপড়ায় বিরক্ত হতে থাকে। অনলাইন শিক্ষায় প্রায়ই দেখা যায় যে শিক্ষার্থীরা একে অপরের সাথে যোগাযোগ করতে অক্ষম। যার কারণে তাদের মধ্যে প্রতিযোগিতার পরিবেশ নেই। এবং শেষ পর্যন্ত, তিনি কেবল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার জন্য পড়াশোনা করেন।

শিক্ষার্থীদের দ্বারা ইন্টারনেটের ভুল ব্যবহারের কারণে শিক্ষার্থীর ভবিষ্যৎও বিপদে পড়তে পারে। কারণ একজন শিক্ষার্থীকে অনলাইন শিক্ষার জন্য তার বাবা -মা তাকে ইন্টারনেট এবং স্মার্টফোন বা ল্যাপটপ দেয়। কিন্তু অনেক সময় শিক্ষার্থীরা অনলাইন ক্লাসের অজুহাতে মোবাইলে গেম খেলছে। এটিও অনলাইন শিক্ষার একটি বড় অসুবিধা।

এ ছাড়া আমাদের দেশের অধিকাংশ নাগরিকের অর্থনৈতিক অবস্থা খুবই দুর্বল। দেশে অনেক মানুষ আছেন যারা দুবেলা খাবারও পান না। এখন এমন মানুষ কোথা থেকে স্মার্টফোন, কম্পিউটার, ল্যাপটপ এবং ইন্টারনেটের মতো সুবিধা আনবে? এবং এই সমস্ত সুবিধা অনলাইন শিক্ষার জন্য অপরিহার্য। এজন্যই অনলাইন শিক্ষা অনেক জায়গায় অনেক কঠিন এবং কঠিন। সেই কারণেই লকডাউনে ভারতের অনেক দরিদ্র শিক্ষার্থীর কাছে অনলাইন শিক্ষা পৌঁছায়নি।

আজও ভারতের অনেক গ্রামে বিদ্যুৎ নেই, তাই সেখানে ইন্টারনেট থাকার সম্ভাবনা খুবই কম। এমন জায়গায় অনলাইন শিক্ষার কোনো গুরুত্ব নেই। এর বাইরেও ইন্টারনেট অনেক জায়গায় আছে, কিন্তু নেটওয়ার্কের সমস্যা আছে। এমনকি এমন জায়গায় অনলাইন শিক্ষার কোনো ব্যবহার নেই।

অনলাইন শিক্ষায়, শিক্ষকের পক্ষে শিক্ষার্থীদের নিয়ন্ত্রণ করা খুব কঠিন হয়ে পড়ে। যেখানে ক্লাসে একজন ছাত্রকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে, তাই ক্লাসের ছাত্ররা শৃঙ্খলা নিয়ে পড়াশোনা করে। অনলাইন শিক্ষায়, শিক্ষার্থীদের শিক্ষকদের ভয় কম থাকে, যার কারণে তারা সময়মতো তাদের হোমওয়ার্ক করে না। যদিও ক্লাসে, শিক্ষার্থীরা হোমওয়ার্ক এবং ক্লাসের কাজ উভয়ই সময়মতো করে।

স্কুলে শিক্ষকরা সব সময় ছাত্রদের উপর নজর রাখেন। কিন্তু অনলাইন ক্লাসে শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের উপর সঠিকভাবে নজর রাখতে পারছেন না। অতএব, অনেক সময় শিক্ষার্থীরা অনলাইন ক্লাসের সময় অন্য কিছু কাজ করে থাকে। যার কারণে অনলাইন শিক্ষার কোন গুরুত্ব নেই।

অনলাইনে শিক্ষার ক্ষেত্রে ব্যবহারিক কাজ কখনই করা যায় না, যখন স্কুলে পড়াশোনার পাশাপাশি অন্যান্য অনেক প্রতিযোগিতা পরিচালিত হয়। শিশুরা নৃত্য, সঙ্গীত, যোগ, খেলাধুলা, বক্তৃতা-রচনা প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ইত্যাদিতে অংশগ্রহণ করে আরো নতুন নতুন জিনিস শিখে। কিন্তু অনলাইন ক্লাসে শিক্ষার্থীদের জন্য শুধুমাত্র স্কুল কোর্স সম্পন্ন করা হয়। এজন্য শিক্ষকরাও তাদের কোর্স শেষ করার জন্য শিক্ষার্থীদের দিকে মনোনিবেশ করেন।

এইভাবে অনলাইন শিক্ষার সুবিধা এবং অসুবিধা উভয়ই রয়েছে। কিন্তু এটি ব্যবহারকারী ব্যক্তির উপর নির্ভর করে, অনলাইন শিক্ষা থেকে উপকার গ্রহণ করা বা ক্ষতি করা।

উপসংহার

অনলাইন শিক্ষায় এত শক্তি আছে যে বর্তমান সময়ে পৃথিবীতে নতুন কোনো বিপর্যয় নেমে এলেও আমাদের শিক্ষার্থীরা শিক্ষা থেকে দূরে থাকবে না। কিন্তু এর অনেক অসুবিধাও রয়েছে। কারণ ছাত্র যদি পড়াশোনার সময় কিছু ভুল কাজ করে বা নোংরা সাইটে যায়, তাহলে ছাত্রদের মধ্যে খুব মারাত্মক ফলাফল দেখা যাবে। এজন্য আপনার সন্তানদের যতটা সম্ভব যত্ন নিন, বিশেষ করে ইন্টারনেট চালানোর সময়। তারপর সে অনলাইন ক্লাস করছে বা অন্য কিছু দেখছে। তবেই আমরা অনলাইন শিক্ষার সঠিক ব্যবহার করতে পারব। এবং এই সব জানার পর, সম্ভবত এখন আপনি নিশ্চয়ই জানতে পেরেছেন, আজকের আধুনিক যুগে অনলাইন শিক্ষার গুরুত্ব কী এবং এটি আমাদের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ। (অনলাইন শিক্ষা রচনা)

আমাদের শেষ কথা

তাই বন্ধুরা, আমি আশা করি আপনি অবশ্যই একটি Article পছন্দ করেছেন (অনলাইন শিক্ষা রচনা – Online Education Essay in Bengali)। আমি সর্বদা এই কামনা করি যে আপনি সর্বদা সঠিক তথ্য পান। এই পোস্টটি সম্পর্কে আপনার যদি কোনও সন্দেহ থাকে তবে আপনাকে অবশ্যই নীচে মন্তব্য করে আমাদের জানান। শেষ অবধি, যদি আপনি Article পছন্দ করেন (অনলাইন শিক্ষা রচনা), তবে অবশ্যই Article টি সমস্ত Social Media Platforms এবং আপনার বন্ধুদের সাথে Share করুন।

Leave a Comment

error: